রবিবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / “ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্টার” চায় অসম

“ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্টার” চায় অসম

কোনও ব্যক্তি যদি কোনও এলাকায় গত ৬ মাস কিংবা তার বেশি সময় ধরে বসবাস করেন বা আগামী ৬ মাস বসবাস করতে আগ্রহী, একজন সাধারণ বাসিন্দা হিসেবে সেই ব্যাক্তির নাম থাকবে ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্টারে।

মিঠুলাল চৌধুরী

অসমে এনআরসি প্রস্তুত করা হয়েছিল বলে এনপিআর থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এনআরসিতে উঠে আসা তথ্য পর্যাপ্ত নয় বলে ভাবছে অসম সরকার। তাই গোটা দেশের সঙ্গে অসমেও এনপিআর প্রস্তুতের জন্য রেজিস্টার জেনারেল অব ইন্ডিয়াকে রাজ্যের মুখ্যসচিব চিঠি লিখেছেন।


রাজ্য সরকারের দাবি, এনআরসিতে শুধু নাগরিকত্বের দিকটি দেখা হয়েছে। কিন্তু রাজ্যের উন্নয়নমুলক প্রকল্প যথাযথ রূপায়ণের জন্য জনগণের সম্পূর্ণ তথ্য সরকারের হাতে থাকা উচিত। উল্লেখ্য, এনপিআর থেকে অসমকে বাদ দেওয়ার কথা রয়েছে নোটিফিকেশনে। কারণ অসমে ইতিমধ্যেই প্রস্তুত করা হয়েছে এনআরসি। ২০১৯ সনের ৩১ জুলাই গোটা দেশে এনপিআর প্রস্তুতের জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অধীন রেজিস্টার জেনারেল অব ইন্ডিয়ার কার্যালয় থেকে নোটিফিকেশন জারি করা হয়েছিল। গোটা দেশে ২০২০ সনের এপ্রিল থেকে এনপিআর প্রস্তুতের কাজ শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা মহামারীর জন্য স্থগিত রাখা হয়। তবে ২০২২ সনের এপ্রিল থেকে গোটা দেশে এনপিআর – এর কাজ ফের শুরু হতে যাচ্ছে।


কোনও ব্যক্তি যদি কোনও এলাকায় গত ৬ মাস কিংবা তার বেশি সময় ধরে বসবাস করেন বা আগামী ৬ মাস বসবাস করতে আগ্রহী, একজন সাধারণ বাসিন্দা হিসেবে সেই ব্যাক্তির নাম থাকবে ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্টারে। এনপিআর প্রস্তুতের জন্য সমীক্ষকরা ঘরে ঘরে গিয়ে প্রত্যেক ব্যক্তির বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করবেন। মানুষের জন্মস্থান, আদি বাসস্থান, আর্থিক অবস্থান, ধর্ম, ভাষা, শিক্ষা ইত্যাদি আর্থ সামাজিক বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করা হবে। অবশ্য এনআরসির মতো এনপিআরে বায়োমেট্রিক তথ্য সংগ্রহ করা হবে না। তাছাড়া প্যান, ভোটার ও আধার কার্ড ইত্যাদি নথি দাখিলের প্রয়োজন নেই বলে কেন্দ্র জানিয়ে দিয়েছে। কিন্তু ভারতের প্রত্যেক নাগরিকের নাম এনপিআরে থাকা বাধ্যতামূলক। তবে অসমে শেষপর্যন্ত এনপিআর – এর কাজ হবে কিনা, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে কেন্দ্র।