শনিবার, ২৪শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / অসমের ইতিহাসে প্রথম “মুন্নাভাই বিধায়ক”

অসমের ইতিহাসে প্রথম “মুন্নাভাই বিধায়ক”

এআইইউডিএফের টিকিটে ২০২১ সনের বিধানসভা নির্বাচনে সোনাই বিধানসভা কেন্দ্র থেকে বিধায়ক নির্বাচিত হয়েছেন করিম উদ্দিন বড়ভূঁইয়া।

মিঠুলাল চৌধুরী

অসম বিধানসভায় প্রথম “মুন্নাভাই বিধায়ক”। কাছাড় জেলার সোনাই বিধানসভা কেন্দ্রের সদ্য নির্বাচিত বিধায়ক করিম উদ্দিন বড়ভুঁইয়া। বিধায়কের ইঞ্জিনিয়ারের ডিপ্লোমা সার্টিফিকেট জাল বলে আগেই অভিযোগ উঠেছে। তারপর নিজেকে তিনি বিএ পাশ বলে দাবি করেছিলেন। কিন্তু মিরাটের চৌধুরী চরণ সিং বিশ্ববিদ্যালয় স্পষ্ট করে দিয়েছে যে ২০১৯ সনে করিম উদ্দিন বড়ভুঁইয়া নামে কোনও ছাত্রের নাম নেই তাঁদের বিশ্ববিদ্যালয়ে। এবার প্রকাশ্যে এসেছে যে বিধায়ক উচ্চ মাধ্যমিকও উত্তীর্ণ হতে পারেননি। অসম উচ্চ শিক্ষা পর্ষদ জানিয়ে দিয়েছে, ১৯৮৭ সনে পরীক্ষায় বসলেও পাশ করতে পারেননি করিম উদ্দিন বড়ভুঁইয়া।


বিধায়ক করিম উদ্দিন বড়ভূঁইয়ার শিক্ষাগত যোগ্যতার জালিয়াতি প্রকাশ্যে এনে সোনাই বিধানসভার প্রাক্তন বিধায়ক আমিনুল হক লস্করের দাবি, অসম বিধানসভায় গত ৭০ বছরে অনেক বরেণ্য ব্যক্তি বিধানসভাকে আলোকিত করেছেন। কিন্তু শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে এরকম প্রতারণা সম্ভবত অসমে আর ঘটেনি।


উল্লেখ্য, এআইইউডিএফের টিকিটে ২০২১ সনের বিধানসভা নির্বাচনে সোনাই বিধানসভা কেন্দ্র থেকে বিধায়ক নির্বাচিত হয়েছেন করিম উদ্দিন বড়ভূঁইয়া। কিন্তু তিনি মনোনয়নপত্রের সঙ্গে শিক্ষাগত যোগ্যতার ভুল তথ্য দিয়ে এবার বিপদে পড়েছেন। এদিকে বিধায়কের বিরুদ্ধে শিক্ষাগত যোগ্যতার ভুল তথ্য দাখিল করার অভিযোগ এনে সোনাইর প্রাক্তন বিধায়ক আমিনুল হক লস্কর গুয়াহাটি হাইকোর্টৈ মামলা দায়ের করেছেন। আদালত আগামী ৪ আগস্ট বিধায়ক করিম উদ্দিন বড়ভূঁইয়াকে সশরীরে উপস্থিত থাকার নির্দেশ দিয়েছে। আদালতের দ্বারস্থ হয়ে প্রাক্তন বিধায়কের দাবি, সোনাইর বিধায়ক আসলে একজন “মুন্নাভাই” । সোনাইর হাজার হাজার মানুষের সাথে তিনি প্রতারণা করেছেন। একজন জনপ্রতিনিধি যদি নিজের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে এরকম প্রতারণা করেন, তবে নতুন প্রজন্মের সামনে কীভাবে তিনি নিজেকে তুলে ধরবেন।