মঙ্গলবার, ২৭শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / অসমের সাতটি জেলা সম্পূর্ণ কন্টেইনমেন্ট জোন

অসমের সাতটি জেলা সম্পূর্ণ কন্টেইনমেন্ট জোন

এছাড়া রাজ্যের বাকি ১৬টি জেলায় করোনা বিধিনিষেধ আগের মতোই জারি থাকবে। দুপুর ১টা পর্যন্ত দোকান ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে।

মিঠুলাল চৌধুরী

অসমের কিছু কিছু জেলায় সংক্রমণের হার কমলেও ৭টি জেলায় সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত ১ সপ্তাহের করোনা পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে সেই ৭টি জেলা গোয়ালপাড়া, লখিমপুর, গোলাঘাট, শোনিতপুর, বিশ্বনাথ, যোরহাট ও মরিগাঁওকে সম্পূর্ণ কন্টেইনমেন্ট জোন ঘোষণা করেছে রাজ্য সরকার। মঙ্গলবার এই নতুন নির্দেশিকা ঘোষণা করেছে অসম সরকার। স্বাস্থ্যমন্ত্রী কেশব মহন্ত মানুষের সচেতনতার অভাবে কয়েকটি জেলায় সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। ঘোষিত ৭টি সম্পূর্ণ কন্টেইনমেন্ট জেলার সাথে ২টি জেলা ডিব্রুগড় ও শিবসাগরে বিশেষ দৃষ্টি রাখবে রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগ। সম্পুর্ন কন্টেইনমেন্ট জোন জারি করা জেলাগুলিতে ২৪ ঘন্টা বলবৎ থাকবে করোনা কার্ফু। এদিকে গত ১ সপ্তাহের পর্যবেক্ষণে রাজ্যের ১১টি জেলায় সংক্রমণ কমেছে তাই এই জেলাগুলোতে করোনা বিধিনিষেধ কিছুটা শিথিল করা হয়েছে। জেলাগুলো হল কামরূপ মহানগর, ধুবড়ি, মাজুলি, দক্ষিণ শালমারা , বঙ্গাইগাঁও, চিরাং , উদালগুড়ি ডিমা হাসাও, চরাইদেও, পশ্চিম কার্বি আংলং ও হাইলাকান্দি। এই জেলাগুলোতে বিকেল ৪টা পর্যন্ত দোকান ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে। এবং সন্ধ্যা ৫টা থেকে করোনা কার্ফু জারি হবে। সান্ধ্য আইন ভোর ৫টা পর্যন্ত জারি থাকবে। এছাড়া রাজ্যের বাকি ১৬টি জেলায় করোনা বিধিনিষেধ আগের মতোই জারি থাকবে। দুপুর ১টা পর্যন্ত দোকান ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে। এবং দুপুর ২টো থেকে করোনা কার্ফু জারি হবে। চলবে ভোর ৫টা পর্যন্ত। জেলাগুলি হচ্ছে শিবসাগর, ডিব্রুগড়, কোকরাঝাড়, তিনসুকিয়া, ধেমাজি, বাক্সা, নলবাড়ি, বরপেটা, বজালি, দরং, নগাঁও, কামরূপ, কার্বি আংলং ও করিমগঞ্জ। নতুন নির্দেশিকা অনুযায়ী রাজ্যে বন্ধ থাকবে স্কুল ও কলেজ এবং ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সহ আন্তঃজেলা যাতায়াত।। বন্ধ থাকবে সাপ্তাহিক হাটবাজার। বিয়ে অথবা শ্রাদ্ধ ইত্যাদি অনুষ্ঠানে ১০ জনের বেশি লোক সমাগমের অনুমতি দেওয়া হয়নি। গত ২৬ জুন যে এসওপি জারি করা হয়েছিল সেই এসওপি অনুযায়ী বাকি বিধিনিষেধ সব একই থাকছে। ৭ জুলাই বুধবার থেকে নতুন নির্দেশিকা কার্যকর হচ্ছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী ১৮ বছর অনূর্ধ্ব শিশু ও কিশোরদের অভিভাবকদের উদ্দেশে বলেন, আপনারা আপনাদের সন্তানের স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন থাকবেন। জন সমাগম থেকে দূরে থাকবেন। প্রয়োজন ছাড়া বাইরে যাবেন না এবং মাস্ক ও সেনিটাইজার নিয়মিত ব্যবহার করবেন।