শুক্রবার, ৩০শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / সংবাদ মাধ্যমের খবরে জেরেই মিলন হলো মা ও ছেলের

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জেরেই মিলন হলো মা ও ছেলের

দীর্ঘদিন ধ‌রে পাথারকান্দির সোনাখিরা এলাকার চামেলি পুরকায়স্থ শয্যাশায়ী। দুই পুত্রের মধ্যে ছোট পুত্র বিশ্বজিৎ অনেক আগেই নিখোঁজ

অরুপ রায়
করিমগঞ্জ, জুন ৮,

বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের প্রচারিত খবরের জেরে অবশেষে দীর্ঘ দুই যুগ পর দেখা হল মা-ছেলের মিলন। এতদিন অভিমানে গর্ভধারিনী মাকে চোখের দেখা দেখতে আসেননি আইনজীবী রঞ্জিত পুরকায়স্থ। এমনই এক অভূতপূর্ব ঘটনা ঘটেছে দক্ষিণ অসমের করিমগঞ্জ শহরে।

বরাক উপত্যকার একাধিক পত্রিকায় এই খবর দেখে করিমগঞ্জ জেলা যুবমোর্চার বেশকিছু যুবক সোজা চলে যান রঞ্জিত পুরকায়স্থের বাড়িতে। সেখানে তারা অনেকক্ষণ রঞ্জিত বাবুকে বুঝিয়ে সুজিয়ে গাড়ি করে সোনাখিরায় নিয়ে আসেন। দীর্ঘ প্রায় পঁচিশ বছর পর মায়ের কোলে ছেলের আগমণের সংবাদ গোটা এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে একরাশ উৎকন্ঠা পরিলক্ষিত হয় এলাকাবাসীর মনে। বিকেল পাঁচটা নাগাদ করিমগঞ্জ থেকে ভাড়া করা গাড়ি সহযোগে যুবমোর্চা বাহিনী রঞ্জিত বাবুকে নিয়ে আসেন নব্বই ঊর্ধ্ব বয়সী মা চামেলি দেবীর কাছে। মুহূর্তে মা-ছেলের যাবতীয় রাগ অভিমান ভুলে গিয়ে একে অপরকে জড়িয়ে ধরেন। সঙ্গে ছিলেন রঞ্জিতবাবুর স্ত্রীও। জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধ‌রে পাথারকান্দির সোনাখিরা এলাকার চামেলি পুরকায়স্থ শয্যাশায়ী। দুই পুত্রের মধ্যে ছোট পুত্র বিশ্বজিৎ অনেক আগেই নিখোঁজ আর বড় ছেলে প্রাক্তন আইনজীবী হলেও নানা অজুহাতে গত প্রায় দুই যুগ থেকে গর্ভধারিনী মাকে চোখের দেখা দেখতে না আসায় এনিয়ে গোটা এলাকায় নিন্দার ঝড় বইছে। সম্প্রতি চামেলি দেবীর নিজ বাড়িতে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে আলাপচারিতায় ভাইয়ের এই অমানবিক ব্যবহারের বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন চামেলি দেবীর দুই কন্যা প্রীতি ও স্মৃতি। তারা বলেন, ২০০৬ সনে তাঁরা বদরপুর জুমবস্তি থেকে সোনাখিরায় এসে বসবাস করছেন।অথচ বড় ভাই বিত্তশালী হ‌য়েও তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা তো দুরের কথা মায়ের আর্তনাদে কোন সাড়া দিচ্ছেন না।তাদের আরো অভিযোগ মা-বোনদের সঙ্গে সম্পর্ক বিচ্ছেদের কোন কারণ না থাকা সত্বেও ভাইয়ের এই আমানবিক আচরণে তারা প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ।তাদের দাবি হয়ত বা ছেলেকে শেষ দেখা দেখার জন্য বর্তমানে মায়ের প্রাণ বেঁচে আছে। এদিকে পাথারকা‌ন্দির বিধায়ক কৃ‌ষ্ণেন্দু পালও মা ছে‌লের ফের এই মিল‌নে খু‌শি ব‌্যক্ত ক‌রে‌ছেন।


তবে বিষয়‌টি নি‌য়ে ক‌রিমগঞ্জ জেলা বি‌জে‌পি যুব মোর্চার কর্মকর্তারা মা‌ঠে নামায় মা ও ছে‌লের মিলন সম্ভব হয় ব‌লে স্থানীয় অ‌নে‌কেই জা‌নি‌য়ে‌ছেন। তবে ঠিক কি কারণে ছেলে মায়ের সঙ্গে অভিমান করে দুরে চলে গেছেন তা কিন্তু শেষ অব্দি খুলাসা হয়নি