বুধবার, ৪ঠা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / অসমে চিকিৎসক নিগ্রহের ঘটনা বাড়ছে, উদ্বেগ

অসমে চিকিৎসক নিগ্রহের ঘটনা বাড়ছে, উদ্বেগ

এক কোভিড আক্রান্ত মুমূর্ষ রোগীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে মৃতের পরিবারের সদস্যরা হাইলাকান্দি জেলার এস কে রায় সিভিল হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক গৌরব ভট্টাচার্যকে শারীরিকভাবে নিগ্রহ করেন।

নিউজফাইল সংবাদ
হাইলাকান্দি, জুন ৫
,

গত কয়েকদিন ধরে অসমের হোজাইর লংকা সহ বরাক উপত্যকার হাইলাকান্দি এবং কাছাড় জেলায় চিকিৎসক নিগ্রহের ঘটনা বাড়তে থাকায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক সহ সচেতন মহল। চিকিৎসক নিগ্রহের ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের কঠোর শাস্তির দাবি তোলেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সংগঠনসহ নাগরিকরা।


এক কোভিড আক্রান্ত মুমূর্ষ রোগীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে মৃতের পরিবারের সদস্যরা হাইলাকান্দি জেলার এস কে রায় সিভিল হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক গৌরব ভট্টাচার্যকে শারীরিকভাবে নিগ্রহ করেন। হোজাইর লংকায় চিকিৎসক নিগ্রহের ঘটনায় পুলিশ তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ গ্রহণ করলেও হাইলাকান্দি জেলার চিকিৎসক গৌরব ভট্টাচার্যের নিগ্রহের ঘটনায় এক সপ্তাহ পর চাপে পড়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত এক মহিলা সহ দুই ব্যক্তিকে শুক্রবার গ্রেফতার করে হাইলাকান্দি পুলিশ। জানা গেছে গত ২৭ মে রাত আনুমানিক আটটা নাগাদ হাইলাকান্দি শহরের চিত্ত মালাকার নামের এক ব্যক্তির শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে এসকে রায় সিভিল হাসপাতালে নিয়ে এলে ওপিডিতে কর্তব্যরত চিকিৎসক গৌরব ভট্টাচার্য তাকে চেক আপ করে প্রেসক্রিপশন দিয়ে হাসপাতালে ভেতরে পাঠান। ১০ মিনিটের মধ্যে রোগীর সঙ্গে আসা ব্যক্তিরা আবার তাকে ডেকে আনেন। তিনি সঙ্গে সঙ্গে পরীক্ষা করেন এবং মৃত বলে ঘোষণা করেন। মৃতের পরিবারের সদস্যরা চিকিৎসক গৌরব ভট্টাচার্যকে মৃত চিত্ত মালাকারকে এসএমসিএইচ এ রেফার করতে চাপ সৃষ্টি করেন। তিনি তাদের বুঝানোর চেষ্টা করলেও বিফল হন। হাসপাতালে উপস্থিত মৃতের পরিবারের সদস্যরা তাকে শারীরিকভাবে নিগ্রহ করেন এবং প্রাণে মারার হুমকি দেন। ঘটনার পরদিন হাইলাকান্দি সদর থানায় চিকিৎসক গৌরব ভট্টাচার্য এ মর্মে এক মামলা দায়ের করেন। কিন্তু চিকিৎসক নিগ্রহের ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার করতে বিলম্ব করে পুলিশ। পরে মৃত ব্যাক্তিকে পরীক্ষা করে কো পজিটিভ দেখা যায়।

এদিকে শুক্রবার সকালে হাইলাকান্দিতে টুইট করে মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা কড়া মনোভাব পোষন করার পরে নড়েচড়ে বসে পুলিশ। হাইলাকান্দি শহরের ১৪ নং ওয়ার্ডের বাড়ি থেকে অভিযুক্ত যুবতী রুম্পী মালাকার ও হিমাংশু মালাকারকে পুলিশ গ্রেফতার করে সদর থানায় নিয়ে আসে।


পুলিশ সুপার রমণদীপ কৌর ঘটনার সাথে জড়িত দু’জনের গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। হাইলাকান্দি সদর থানায় ২৯৪, ৩২৩, ৩৫৩, ৫০৬ এবং ৩৪ আইপিসির অধীনে ৪৪৮/২১ নম্বরে মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযুক্ত যুবতী রুম্পী কোভিড আক্রান্ত হওয়ায় তাকে এস কে রায় সিভিল হাসপাতালের কোভিড ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।


এদিকে গত মঙ্গলবার কাছাড় জেলার কাটিগড়ার কালাইন বাগান এলাকায় রেট পরীক্ষা করতে যাওয়া কর্তব্যরত চিকিৎসাকর্মীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন স্থানীয় কিছু মানুষ। জানা গেছে, তারা রেট এবং আরটিপিসিআর পরীক্ষা করতে বাধা প্রদান করেন এবং চিকিৎসাকর্মীরা পালিয়ে যেতে বাধ্য হন । এমর্মে কালাইন সি এইচ সি র ডেপুটি সুপারেন্টেন্ড সৌমন ভৌমিক কালাইন আউটপোস্টে বিপন তেলি, বাবুল উরাং, অজয় মিরদা, মধু তেলিকে অভিযুক্ত করে এক এজাহার দায়ের করেন। আর এই এজাহারের ভিত্তিতে কাটিগড়া পুলিশ চারজনকে গ্রেফতার করে। বুধবার তাদের আদালতে প্রেরণ করে কাটিগড়া পুলিশ ।এ নিয়ে গোটা এলাকায় চাঞ্চল্য বিরাজ করছে।