শুক্রবার, ৩০শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / ভাষা শহিদের কন্যাকে হুমকি ও অপমান করার প্রতিবাদ ও নিন্দা শিলচরে

ভাষা শহিদের কন্যাকে হুমকি ও অপমান করার প্রতিবাদ ও নিন্দা শিলচরে

যিনি ভাষাজননীর সম্মান রক্ষার্থে নিজ প্রাণ উৎসর্গ করলেন তার কন্যাকে যদি তথাকথিত এক সাংস্কৃতিক কর্মীর নিকট প্রমাণ দিতে হয় তিনি ভাষাশহীদের কন্যা এর চেয়ে দুর্ভাগ্যের বিষয় আর কি হতে পারে ?

নিউজফাইল সংবাদ
শিলচর, মে ২৭
,

বরাক উপত্যকার শিলচরে বাংলা ভাষা শহিদ বীরেন্দ্র সূত্রধরের কন্যাকে হুমকি প্রদর্শন ও অপমান করার প্রতিবাদে অবিলম্বে দুস্কৃতীকারীর পরিচয় প্রকাশ্যে আনা ও শাস্তির দাবিতে জেলা প্রশাসনের উপর একযোগে আবেদন করার সিদ্ধান্ত নিল শিলচরের বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ,ক্রীড়া সংগঠন , লেখক, শিল্পী, কলাকুশলী ও শহরের সচেতন নাগরিকরা।
ভাষা শহীদ কন্যা মধুমিতা সূত্রধরকে ভিটেছাড়া করার উদ্দেশ্যে ঘৃণ্য ষড়যন্ত্র চালাচ্ছেন শিলচরের এক প্রভাবশালী তথাকথিত সাংস্কৃতিক কর্মী। সম্প্রতি এই মর্মে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে এবার দুস্কৃতিকারীর পরিচয় জনসমক্ষে প্রকাশ ও যথোপযুক্ত শাস্তির দাবিতে একযোগে জেলা প্রশাসনের নিকট দাবি জানানোর সিদ্ধান্ত নিল শিলচরের বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ক্রীড়া সংগঠন, লেখক, শিল্পী,কলাকুশলী ও শহরের সচেতন নাগরিকবৃন্দ।

এক রেকর্ডেড প্রেস বার্তায় এদিন স্বাক্ষরকারীগণ জানান যে সংবাদ মাধ্যম সূত্রে এই খবর পেয়ে তাঁরা স্তম্ভিত । যিনি ভাষাজননীর সম্মান রক্ষার্থে নিজ প্রাণ উৎসর্গ করলেন তার কন্যাকে যদি তথাকথিত এক সাংস্কৃতিক কর্মীর নিকট প্রমাণ দিতে হয় তিনি ভাষাশহীদের কন্যা এর চেয়ে দুর্ভাগ্যের বিষয় আর কি হতে পারে ? তারা বলেন একাদশ ভাষা শহিদদের পরিবারের কারোর প্রতিই উপযুক্ত সম্মান প্রদর্শন করতে পারেনি এই উপত্যাকার জনগন। সরকারি স্বীকৃতি তো মেলেনি, উল্টে চরম আর্থিক দুর্গতির শিকার হতে হয়েছে অনেককেই। এমনকি বীরেন্দ্র সূত্রধরের স্ত্রী ধনকুমারী সূত্রধরেরও জীবিকা নির্বাহের জন্য সারা জীবন সংগ্রাম করে যেতে হয়েছে। এটা সার্বিক লজ্জার কথা। তাঁদের প্রশ্ন – আসাম আন্দোলনে যারা শহিদ হয়েছেন তাঁদের পরিবারের প্রতি এরকম বঞ্চনার কথা কি কেউ কল্পনা করতে পারেন ?

শিলচর পুরসভা থেকে রাধামাধব রোড সংলগ্ন এলাকায় মাত্র দুকাঠা জমি বরাদ্দ করা হয়েছে সূত্রধর পরিবারকে যেখানে তারা কোনক্রমে কালাতিপাত করছেন। কিন্তু এবার ব্যাক্তিগত স্বার্থে যদি কেউ সেই জমি থেকে জোর জবরদস্তি উঠিয়ে দেবার চেষ্টা করেন তবে তারা কোন অবস্থায়ই তা মেনে নেবেন না। তাঁরা বলেন যে বর্তমান কোরোনা পরিস্থিতির জন্য তাঁরা এই ব্যাপারে জেলাশাসককে স্মারকলিপি দিয়ে উঠতে পারেননি, তবে আগামী এক দুদিনের মধ্যে তারা দোষীর নাম প্রকাশ্যে আনা ও শাস্তির দাবিতে জেলাশাসকের সাথে দেখা করবেন। তারা সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জেলাশাসক কে একই সঙ্গে আবেদন জানাচ্ছেন যে এরকম একটি স্পর্শকাতর ব্যাপারে তিনি যেন স্বপ্রণোদিত হয়ে পদক্ষেপ নেন। কারণ এই বিষয়ের সাথে এই উপত্যকার আবেগ জড়িয়ে আছে। একই সাথে শিলচর পৌরসভা কর্তৃপক্ষকে অবিলম্বে উক্ত জমি সংক্রান্ত সমস্ত বকেয়া কাগজপত্র শহীদ কন্যা মধুমিতা সূত্রধরের হাতে তুলে দেবার সবিশেষ অনুরোধ জানিয়েছেন তারা। সেইসঙ্গে জমির সীমার স্থায়ী দেওয়াল সরকারি খরচে তৈরি করে দেওয়ার জন্য দাবি জানিয়েছেন।