শনিবার, ২৪শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / করিমগঞ্জ হাসপাতালে এসে ক্ষুব্ধ স্বাস্থ্যমন্ত্রী কেশব মহন্ত

করিমগঞ্জ হাসপাতালে এসে ক্ষুব্ধ স্বাস্থ্যমন্ত্রী কেশব মহন্ত

কাজের গাফিলতির জন্য ঠিকাদার আব্দুল কুদ্দুসকেও শাসিয়ে দেন । মহন্ত স্বাস্থ্য বিভাগের শীর্ষ আধিকারিকদের নিয়ে করিমগঞ্জ সিভিল হাসপাতাল পরিদর্শনে যান । কোভিড ওয়ার্ডে গিয়েও রোগীদের খোঁজখবর নেন ।

অরুপ রায়
করিমগঞ্জ, মে ১৭,

গত এক বছর ধরে যে কাজ হয়ে উঠেনি তা আগামী কুড়ি দিনের মধ্যে শেষ করার নির্দেশ দিলেন রাজ্যের নতুন স্বাস্থ্যমন্ত্রী কেশব মহন্ত । সোমবার স্বাস্থ্যমন্ত্রী করিমগঞ্জ সফরে এসে সিভিল হাসপাতালের অব্যবস্থা দেখে হাসপাতাল সুপার অরুণাভ চৌধুরীকেও ধমক দেন । এমনকি কাজের গাফিলতির জন্য ঠিকাদার আব্দুল কুদ্দুসকেও শাসিয়ে দেন । মহন্ত স্বাস্থ্য বিভাগের শীর্ষ আধিকারিকদের নিয়ে করিমগঞ্জ সিভিল হাসপাতাল পরিদর্শনে যান । কোভিড ওয়ার্ডে গিয়েও রোগীদের খোঁজখবর নেন । একসময় হাসপাতালের ভেতর ময়লা আবর্জনা দেখে রাগে অগ্নিশর্মা হয়ে ওঠেন তিনি । হাসপাতাল সুপার নিজের সাফাইয়ে কিছু বলার চেষ্টা করেছিলেন কিন্তু মন্ত্রী কোনো কথাই শুনতে রাজি হননি । এরপর মন্ত্রীর ক্ষোভ আছড়ে পড়ে ঠিকাদারের উপর । হাসপাতাল পরিদর্শন করে মন্ত্রী চলে যান পাবলিক হায়ার সেকেন্ডারি স্কুলের ভ্যাকসিনেশন সেন্টারে । তারপর আসেন জেলাশাসক কার্যালয়ে । করোনা পরিস্থিতি এবং জেলার স্বাস্থ্য পরিষেবা নিয়ে শুরু হয় বৈঠক । বৈঠকে জেলার পাঁচ বিধায়ক সহ শাসক দলের ক’জন নেতা উপস্থিত ছিলেন । উত্তর করিমগঞ্জের বিধায়ক কমলাক্ষ দে পুরকায়স্থ করিমগঞ্জ সিভিল হাসপাতালে আইসিইউ নির্মাণে টালবাহানার অভিযোগ তুলে ধরেন।

পাথারকান্দির বিধায়ক কৃষ্ণেন্দু পাল করিমগঞ্জ সিভিল হাসপাতালে আইসিইউর পাশাপাশি অক্সিজেন জেনারেশন প্ল্যান্ট বসানোর দাবি জানান । দক্ষিণ করিমগঞ্জের বিধায়ক সিদ্দেক আহমদ তাঁর বিধানসভা কেন্দ্রের বিভিন্ন হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরিষেবার অব্যবস্থা, ডাক্তারের অভাব এসব অভিযোগ তুলে ধরেন । একইভাবে নিজের কেন্দ্রের সমস্যাও তুলে ধরেন রাতাবাড়ির বিধায়ক বিজয় মালাকার । বৈঠকে দুটো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তুলে ধরেন বিজেপি নেতা মানস দাস । তিনি জেলার আশি বছরের ঊর্ধ্ব ব্যক্তি এবং শারীরিক ভাবে বিশেষ সক্ষম ব্যক্তিদের কোল্ড চেইন ব্যবস্থার মাধ্যমে টিকা প্রদানের দাবি জানান । তাঁর দ্বিতীয় দাবি ছিল, ১৮ থেকে ৪৪ বছরের লোকেদের ভ্যাকসিনেশনের জন্য যে স্লট নির্ধারন করা হয়েছে তাতে সময় বাড়ানোর দাবি জানান । স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানস দাসের দুটো দাবিই নোট করে নিয়ে যান মহন্ত । বৈঠক শেষে মন্ত্রী সাংবাদিকদের মুখোমুখী হন । তবে প্রেস মিটের ব্যবস্থা না করায় জেলার তথ্য ও জনসংযোগ আধিকারিকের উপরও ক্ষোভ ঝাড়েন । তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আগামী কুড়ি দিনের মধ্যেই করিমগঞ্জ সিভিল হাসপাতালে আইসিইউ নির্মাণ হয়ে যাবে । ঠিকাদার কোন দিন কী কী করবেন তা আগে থেকেই লিখিয়ে নিয়েছেন । সুতরাং করিমগঞ্জ সিভিলে কুড়ি দিনের মধ্যে আই সি ইউ হয়ে যাবে । করিমগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে এখন দেড়শটি বেড রয়েছে, আরো ষাটটি বাড়ানো হবে এবং আগামী দু মাসের মধ্যে অক্সিজেন জেনারেশন প্ল্যান্টও হয়ে যাবে বলে আশ্বাস দেন তিনি । স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করিমগঞ্জ হাসপাতালে অক্সিজেনের অভাব নেই তবুও প্লান্ট বসানো হলে এক হাজার লিটার অক্সিজেন জোগান স্ট্যান্ডবাই থাকবে । বলেন, শীঘ্রই টিকাকরণ কেন্দ্রগুলোও আরো উন্নত করা হবে । রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগ করোনা মোকাবিলায় অনেক যত্ন সহকারে কাজ করে যাচ্ছেন । সংক্রমণ ঠেকাতে মুখ্যমন্ত্রীর পরামর্শে আন্ত জেলা যাতায়াতও কিছু দিনের জন্য বন্ধ করা হবে বলে জানিয়ে দেন মন্ত্রী কেশব মহন্ত ।