শনিবার, ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / করোনায় মৃত ব্যক্তির সৎকারে হাত বাড়ালো মুসলমান যুবকরা

করোনায় মৃত ব্যক্তির সৎকারে হাত বাড়ালো মুসলমান যুবকরা

রিমগঞ্জ শহরের শ্যামাপ্রসাদ রোডের বাসিন্দা করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় মৃনাল কান্তি দে'র। পরে সন্ধ্যে থেকে সারা রাত মৃতদেহ সৎকার নিয়ে বার বার প্রতিবাদের সম্মুখিন হতে হয় । পরে নিরুপায় হয়ে পুলিশ মৃনাল বাবুর

অরুপ রায়

করিমগঞ্জ, মে ৪,


করোনায় সংক্রমিত মৃতদেহ সৎকারে বাধাপ্রাপ্ত হল করিমগঞ্জ জেলা প্রশাসন। পরবর্তিতে জুনিটিলা পুলিশ রিজার্ভের মাঠে স্থানীয় যুবক ও রবীন হুড আর্মীর সহযোগিতায় দাহ সংস্কার সম্পন্ন হল। এনিয়ে গোটা বরাক উপত্যকার মানুষের কাছে সম্প্রতির বার্তা বহন করতে সক্ষম হয়েছে ।

কি ঘটেছিলো এনিয়ে সীমান্ত জেলা শহরের সমাজকর্মী সুজন দেবরায় বলেন, করিমগঞ্জ শহরের শ্যামাপ্রসাদ রোডের বাসিন্দা করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় মৃনাল কান্তি দে’র। পরে সন্ধ্যে থেকে সারা রাত  মৃতদেহ সৎকার নিয়ে বার বার প্রতিবাদের সম্মুখিন হতে হয় । পরে নিরুপায় হয়ে পুলিশ মৃনাল বাবুর দেহ শহরের নিকটবর্তী জুনিটিলার পুলিশের নিজস্ব ভুমিতে করা হবে বলে সিদ্ধান্ত নেয়, তখন ভোর তিনটা হয়ে গেছে । মৃনালবাবুর অন্তিম সংস্কারের জন্য রবিন হুড আর্মী এগিয়ে আসে । মৃত দেহ নিয়ে আসা হয় জুনিটিলায় । মৃত দেহ পোড়াতে নির্দিষ্ট কাজ শুরু হয় । সার্কেল অফিসারের গাড়ি করে কয়েকজন পুলিশ কর্মী সুভাষ নগর শ্মশান থেকে কাঠ নিয়ে আসেন । ঠিক তখন জুনিটিলার আশপাশ এলাকার মুসলমান সম্প্রদায়ের লোকেরা ইফতার করে বেরিয়ে দেখেন মৃত দেহ , পুলিশ এবং সাদা পোশাকের কিছু লোক সৎকার করতে তৎপর, তখন তারা বিস্তারিত জানতে পেরে পুলিশ ও প্রশাসনের লোকদের বলেন বর্তমানে যেখানে মৃত দেহ দাহ করা হবে তার আশপাশে লোক বসতি তাই মৃতদেহ যদি এই এলাকার অন্য প্রান্তে দাহ করা হয় তা হলে ভালো এবং সেই ভুমি সরকারি এবং সেখানে পরবর্তীতেও মৃত দেহ সৎকার্ করা যাবে। তখন এই এলাকার কয়েকজন লোক  সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয় । শ্মশানে চুলা থেকে শুরু করে কাঠ বহন করা এমনকি নিজেদের বাড়ি থেকে কেরোসিন যোগান দেওয়া সব কিছুতেই সাহায্য করে। তবে সৎকারের দায়িত্ব পালন করে রবিন হুড আর্মীর সদস্যরা । তবে জুনিটিলার বাসিন্দা যারা মৃত দেহ সৎকারে এগিয়ে আসেন তারা হলেন করীর উদ্দিন, নিজাম উদ্দিন, সেলিম আহমেদ এবং মহম্মদ আলি ।

আলিদের এমন কাজের জন্য বরাক উপত্যকার ব্যক্তি সংগঠন তাদের প্রশংসা করেন এবং আগামী দিনে এমন সম্প্রীতির বার্তা বহন করতে সমাজের প্রতিটি স্তরের মানুষকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তাদের এই কাজের প্রসংসা করেন বিধায়ক কমলাক্ষ দে পুরকায়স্থ, সমাজকর্মী সুজন দেবরায় প্রমুখ ।