শনিবার, ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / সাংবাদিকদের কোভিড টিকা নেওয়ার আহ্বান

সাংবাদিকদের কোভিড টিকা নেওয়ার আহ্বান

প্রতিদিন ৪০০ জনকে কোভিড টিকা দেওয়া হবে তারপরও মানুষের ভিড় সামাল দিতে হিমসিম খেতে হচ্ছে করিমগঞ্জ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ।

অরুপ রায়
করিমগঞ্জ, এপ্রিল ২২,

বিধায়ক কমলাক্ষ দেপুরকায়স্হ হাসপাতাল পরিদর্শনে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে বলেন, ভ্যাক্সিন কাল থেকে আর মিলবে না হাসপাতালে।যা এসেছিল সব শেষ।পত্রিকায় বড় বড় বিঞ্জাপন,বাস্তবে নেই কিছুই, সে কথা উল্লেখ করে সরকারের সমালোচনা করেন তিনি।জেলার সব হাসপাতালে পর্যাপ্ত ভ্যাকসিন সরবরাহ করার দাবি জানান তিনি।সিভিল হাসপাতালের পরিকাঠামো উন্নয়ন দাবি করেন বিধায়ক।হাসপাতাল সুপারের সঙ্গে আলোচনার পর এ নিয়ে মন্ত্রী পীযুষ হাজরিকা,স্বাস্হ্য বিভাগের প্রিন্সিপিল সেক্রেটারি, সঞ্চালকের সঙ্গে কথা বলেছেন বলেও জানান তিনি। ৪৫ বছরের ঊর্ধ্ব সবাইকে ভ্যাক্সিন দেওয়ার কথা বলা হলেও হাসপাতালগুলো খালি। এর পর আঠারো ঊর্ধ্বদের ভ্যাক্সিন দেওয়ার সরকারি পরিকল্পনা প্রসঙ্গে বলেন, এরজন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ ভ্যাক্সিনের ব্যবস্হা অবশ্যই করতে হবে।বিধায়ক কমলাক্ষ বলেন, দুর্যোগপূর্ণ এ সময়ে সরকারের সঙ্গে সহযোগিতা করে যাওয়া তাঁদের দায়িত্ব ও কর্তব্য। মোকাবিলা করার কিছুই না থাকলে কীই বা করবেন তাঁরা! প্রশ্ন তুলেন বিধায়ক।

প্রতিদিন ৪০০ জনকে কোভিড টিকা দেওয়া হবে তারপরও মানুষের ভিড় সামাল দিতে হিমসিম খেতে হচ্ছে করিমগঞ্জ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে । পুলিশ মোতায়েন করেও সামাল দেওয়া যাচ্ছেনা । এদিকে আজ করিমগঞ্জের সাংবাদিকরা আঠাশ দিন পর দ্বিতীয় টিকা নিলেন । জেলার সব সাংবাদিকদের টিকা নেওয়ার পরামর্শ দেন প্রেসক্লাবের সভাপতি মিহির দেব নাথ, সম্পাদক অরুপ রায় ।

করোনা সংক্রমনের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় অবিলম্বে করিমগঞ্জ সিভিল হাসপাতালের পরিকাঠামোর উন্নয়ন দাবি করল করিমগঞ্জ জেলা কংগ্রেস।সভাপতি সতু রায় ও বিধায়ক কমলাক্ষ দেপুরকায়স্হ এই দাবি জানিয়েছেন।

জেলা কংগ্রেস সভাপতি হাসপাতালটির পরিকাঠামোগত দিক নিয় অসন্তোষ প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন,আইসিইউ, ভেন্টিলেশন ব্যবস্হা চালু না হলে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দেওয়া সম্ভব হবে না। বিভীষিকাময় অবস্থা হবে করিমগঞ্জের।যে ওষুধ এসেছে তাও অপর্যাপ্ত। তিনদিনে নিঃশেষ হয়ে যাবে সব।জানান,আইসিইউর অবস্হা একেবারে নড়বড়ে।কাজ শুরু হয়েছে মাত্র। ভেন্টিলেসনের কাজে হাত পড়লেও তা অপারেট করার লোক নেই।দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় অবিলম্বে আইসিইউ, ভেন্টিলেশন ব্যবস্হা চালু করার পাশাপাশি পর্যাপ্ত ওষুধ, কিট ইত্যাদি মজুত রাখার দাবি জানান জেলা কংগ্রেস সভাপতি।