শনিবার, ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / “পাঁচশো বছর আগেই গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সুচনা করেছিলেন চৈতন্যদেব”, শর্মিষ্ঠা খাজাঞ্চি

“পাঁচশো বছর আগেই গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সুচনা করেছিলেন চৈতন্যদেব”, শর্মিষ্ঠা খাজাঞ্চি

আমাদের দেশের ধর্মীয় ভাবনা আমাদের সামাজিক চিন্তাধারা, সামাজিক পরিস্থিতি এবং মানুষের যে অবস্থান তা নিয়ে তিনি এমন কিছু করে গেছেন যেগুলো আমি আলোচনা করে দীর্ঘায়িত করা সম্ভব নয় ।

অরুপ রায়, করিমগঞ্জ

শ্রীচৈতন্যদেব ৫০০ বছর আগেই মানব জাতির ব্যক্তি স্বাধীনতা, বিধবা বিবাহ, মাতৃ সম্মানসহ নানা কুসংস্কারের প্রতিবাদ করে গেছেন । গণতান্ত্রিক আন্দলনের সূচনা তাঁর সময় থেকেই । আজ বিবেকানন্দ কেন্দ্র কন্যাকুমারী করিমগঞ্জ আয়োজিত “সাধ্যায় বর্গ” উপলক্ষে “ভগবান শ্রীচৈতন্যের আবির্ভাব এবং শ্রী কৃষ্ণের দোল পূর্ণিমা” শীর্ষক আলোচনাসভায় মুখ্য বক্তা হিসেবে করিমগঞ্জ রবীন্দ্র সদন মহিলা মহাবিদ্যালয়ের প্রাক্তন অধ্যক্ষা শর্মিষ্ঠা খাজাঞ্চি এ কথাগুলো বলেন । 

তিনি বলেন, আমাদের দেশের ধর্মীয় ভাবনা আমাদের সামাজিক চিন্তাধারা, সামাজিক পরিস্থিতি এবং মানুষের যে অবস্থান তা নিয়ে তিনি এমন কিছু করে গেছেন যেগুলো আমি আলোচনা করে দীর্ঘায়িত করা সম্ভব নয় । আমাদের ধর্মীয় ভাবনা সেই ভাবনার জগতে সেই বৈপ্লবিক  পরিবর্তন আনলেন ভগবান  শ্রীচৈতন্য । তিনি পুজা অর্চনা জাগ যজ্ঞ সমস্ত কিছু থেকে আমাদের মানুষকে সরিয়ে নিয়ে নতুন পথের ঠিকানা দিলেন । তিনি বলেছিলেন যে শুধুমাত্র কৃষ্ণ নামের মধ্যেই মানুষের পরম প্রাপ্তি । শুধু তাই নয় বিবাহ অনাড়ম্বর প্রথা বাদ দিয়ে পাঁচ শত বছর আগে ঠাকুরের নাম নিয়ে বিবাহ প্রথা তিনি প্রচলন করলেন । ধর্মীয় চিন্তার ক্ষেত্রে তিনি অন্য কিছু দেখিয়েছিলেন । এই যে সমাজ সংস্কারক জাতিভেদ প্রথা রোধ এসব কিন্তু চৈতন্য মহাপ্রভু পাঁচশো বছর আগেই করে গেছেন । সমাজ সংস্কারক, একজন বৈপ্লবিক সত্তার মানুষ, মানবতার পূজারী মানুষ, সমতার পূজারী এসব চৈতন্যদেবের মধ্যে ছিল । এর যে প্রভাব ছিল তার প্রমান হলো তাকে নিয়েই বিভিন্ন চৈতন্য সাহিত্য তৈরি হলো । বৃন্দাবন দাস, জয়ানন্দ সহ অনেকে চৈতন্য মঙ্গল লিখলেন । এর পরবর্তীতে দেখা গেলো যে মুকুন্দ দেবের চন্ডী মঙ্গলে চৈতন্যদেবের বন্দনা করা হয় । এর পরেও আমাদের যে বৈষ্ণব ভাবাপন্ন মুসলমান কবি সৈয়দ আলোয়ল সহ আরো যারা তারা চৈতন্যদেবের আরাধনা করে কবিতা রচনা করেছিলেন । চৈতন্য দেব তার সময়ে কিন্তু শেষ হয়ে যাননি । পরবর্তিতে ষোড়শ শতাব্দী সপ্তদশ শতাব্দীতে মুসলমান কবিদের মধ্যে তিনি নিজেকে তার ভাবধারাকে ছড়িয়ে গিয়েছিলেন । এই যে ধর্মের যে বৈপ্লবিক পরিবর্তন মানে ভগবান শুধু বড় মানুষের ঘরে থাকেন না দরিদ্রের কুটিরেও থাকেন তাঁকে কীর্তনের মধ্যে পাওয়া যায় সমাজ সংস্কার বিধবা বিবাহের সাহিত্য সবকিছুতেই পাঁচশো বছর আগেই বিপ্লব দেখিয়েছেন চৈতন্যদেব । যিনি সমাজ সংস্কার করেছেন, বিধবা বিবাহ তার যথেষ্ট প্রমান আছে সাহিত্যে । এই প্রেক্ষিতে চৈতন্যদেব আমাদের কাছে একজন বিপ্লবী সত্তা । দোল উৎসব আমাদের সব উৎসবের সঙ্গে প্রকৃতির একটি সম্পর্ক রয়েছে । নানান সাজে সেজে উঠে প্রকৃতি । প্রকৃতির রঙে আমাদের মনের রঙ ফুটে উঠে । তাই মহাপ্রভুর যেমন ধর্মীয় ভাব সঙ্গে তার জন্মদিনকে রঙে রঙে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে ঠিক তেমনি প্রকৃতির রঙে সারা বছরের যন্ত্রনা দুঃখ কষ্ট সবকিছুই সরিয়ে দিয়ে প্রকৃতির রঙে রাঙিয়ে দিলাম । রাঙানোর ব্যাপারটা দোল উৎসবের বিরাট বড়ো বৈশিষ্ট্য যা মহাপ্রভুর জন্ম কে কেন্দ্র করে আমাদের জীবনে এসেছে । কারন প্রকৃতি চিরকাল ছিল আজো রয়েছে, ভবিষ্যতে থাকবে তাই প্রকৃতির রঙে রাঙানোর কাজ হচ্ছে দোল উৎসব ।

বিবেকানন্দ কেন্দ্র কন্যাকুমারী বরাক সহ সংযোজগ লোপামুদ্রা চৌধুরীর পৌরহিত্যে এদিনের আলোচনায় দিনটি নিয়ে প্রাসঙ্গিক বক্তব্য রাখেন করিমগঞ্জ কার্যস্তনের সহ সংযোজগ গৌতম দেব । পরে কেন্দ্রের সম্পর্ক অভিযান প্রসঙ্গ নিয়ে আলোচনা করেন করিমগঞ্জ কেন্দ্রের  সংযোজগ অরুপ রায় । সম্পর্ক অভিযান অংশ হিসেবে এসবিআই অবসর প্রাপ্ত ডিপুটি ম্যানেজার প্রবাল রঞ্জন দেব এবং সংবাদ কর্মী সুজয় শ্যামকে বিবেকানন্দ শিলা স্মরকের বই উপহার তুলে দেন লোপামুদ্রা চৌধুরী, শর্মিষ্ঠা খাজাঞ্চি, উপস্থিত ছিলেন জয়শ্রী চক্রবর্তী, অপরূপ দাস, সূচন্দনা দেব সরকার, এস এম জাহির আব্বাস প্রমুখ ।