শনিবার, ২৪শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / করিমগঞ্জে ইভিএম কান্ড তদন্তে সি আই ডি

করিমগঞ্জে ইভিএম কান্ড তদন্তে সি আই ডি

ভোটার দিন এক এপ্রিল ই ভি এম বহনকারী একটি গাড়ির উপর কিছু জনতা আক্রমণ করলে উত্তেজনা ছড়ায়।

অরুপ রায়, করিমগঞ্জ, এপ্রিল ৭,
করিমগঞ্জে ইভিএম কাণ্ডে নতুন মোড় নিচ্ছে । নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে এবার তদন্তে নেমেছে সিআইডি । ইভিএম বহনকারী গাড়িতে হামলা, ভোট কর্মীদের শারীরিক নির্যাতন,গাড়ির চালককে প্রাণে মারার চেষ্টা,গাড়ি ভাঙচুর, পুলিশের কাজে বাধা দেওয়া এরকম বেশ কিছু ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ইতিমধ্যে তিনজনকে জেলে প্রেরণ করেছে আদালত । তবে ঘটনা নিয়ে বসে নেই করিমগঞ্জ পুলিশ। গোটা ঘটনায় এখন পর্যন্ত ২৭ জনকে পুলিশ ঘটনার দিন সামাজিক প্রচার মাধ্যমে ভিডিও দেখে গ্রেফতার করেছে ।

এদিকে গত কয়েকদিন করিমগঞ্জ পুলিশ পাথারকান্দি ও বাজারিছড়া থানা এলাকায় ব্যপক অভিযানে নেমেছে । কারণ ইভিএম কাণ্ডে অধিকাংশ পাথারকান্দি বিধাসভার লোক যাদের বাড়ি আছিমগঞ্জ, পাথারকান্দি, কটামণি এলাকায় । পুলিশ বাড়ি বাড়ি তল্লাশি শুরু করতেই কিছু রাজনৈতিক নেতা জেলা পুলিশ সুপারের নিকট আবেদন জানান বাড়ি বাড়ি তল্লাশির নামে আতঙ্ক না করতে যারা দোষী তারা নিজে থেকে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করবে। নেতারা কথা দিলেও আত্মসমর্পণের খবর নেই । তবে সিআইডির টিম ঘরে যেতেই আত্মসমর্পণ পর্ব শুরু হয়েছে।

এখন পর্যন্ত তিন জন জেলে এবং আজ করিমগঞ্জ থানায় এসে তিনজন আত্মসমর্পণ করেন তাদের মধ্যে অন্যতম নাম আব্দুল হামিদ অন্যতম । তিনজনের মধ্যে একজন চা বাগানের লোক ।

ভোটার দিন এক এপ্রিল ই ভি এম বহনকারী একটি গাড়ির উপর কিছু জনতা আক্রমণ করলে উত্তেজনা ছড়ায়। পুলিশ লাঠিচার্জ করে এবং গুলিছুড়ে । পুলিশ তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ না নিলে গাড়িতে হামলাকারীদের পরবর্তী পদক্ষেপ ছিলো গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া এবং বিধায়ক কৃষ্ণেন্দু পালের বাড়িতে হামলা । তবে হামলাকারীরা যে তাদের কাজে সফল হয়েছে তার জন্য ওই রাতে বারইগ্রামের চেরাগিবাজারে একটি ধাবাতে খাওয়া দাওয়ার সঙ্গে মজমস্তি করে । এই ধাবার সিসিটিভি র ভিডিওতে অনেক নেতার চেহারা ধরা পড়েছে । সিআইডি তদন্তে এদের মুখোশ খুলে যাবে বলে সচেতন মহল অনুমান করছেন । পুলিশ যাদের নামের তালিকা তৈরি করেছে তাদের মধ্যে কয়েকজন গ্রাম পঞ্চায়ত নির্বাচিত প্রতিনিধি আছেন । পুলিশের একটি সূত্রে খবরে প্রকাশ আগামী দুএকদিনের মধ্যে দুষ্কৃতীরা আত্মসমর্পণ না করলে পুলিশ যে কোন সময়ে বড় ধরনের অভিযানে নামবে । কারণ রাজ্য নির্বাচন কমিশন চাইছে এ মাসের মধ্যে তদন্তের কাজ শেষ করে ঘঠনার আসল রহস্য উদঘাটন করা । পুলিশের তালিকায় যাদের নাম উল্লেখ আছে বা ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকতে পারে তারা হলেন  ইমদাদুল্লাহ, সাদিক আহমেদ, সুহাইল আহমেদ (মনর) গ্রাম দেওবাড়ি, পো কানাইবাজার মৌলানা ওয়াহিদুজ্জামান গ্রাম পূবরাগুল পোঃ কানাইবাজার রফিক আহমেদ, শামীম আহমেদ, সাখীর আহমেদ, নজমুল হক, ওহিদুজ্জামান, ইমদাদুল্লাহ, ইফতিকার বাহার, সুহাইল আহমেদ, সাদিক আহমেদ, আরিফ উদ্দিন, আবুল কালাম, জুবাইর আহমেদ, আব্দুল হামিদ, সিরাজ উদ্দিন, তাজু আহমেদ, কামরান পাশা তাদের বাড়ি পাথারকান্দি বিধানসভার বিভিন্ন এলাকায় ।

এদিকে করিমগঞ্জে ইভিএম নিয়ে সংঘটিত অবাঞ্চিত ঘটনার তদন্ত করতে সিআইডির দুই আধিকারিক গতকাল থেকে শহরে রয়েছেন। তারা ইভিএম কাণ্ডের যাবতীয় বিষয়ে পুলিশের কাছ থেকে খবর নিয়ে তদন্ত করছেন। একই সঙ্গে কানিশাইলে ইভিএম নিয়ে যে ঘটনা ঘটেছে তার তদন্ত করবেন পুলিশ সহযোগে বলে জানাগেছে। উল্লেখ্য ভোটের দিন রাতে কানিশাইলে ইভিএম নিয়ে উত্তপ্ত পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশকে লাঠিচার্জ এবং শূণ‍্যে গুলি ছুড়তে হয়।    নিলাম বাজার লালপুলের কাছে রাতাবাড়ির একটি বুথের  ইভিএম থাকা একটি গাড়ি নষ্ট হয়ে যায়। ওই সময় পাথারকান্দির বিধায়কের একটি গাড়ি এদিকে আসতে দেখে ইভিএম নিয়ে  দাড়িয়ে থাকা পোলিং স্টাফ  সিগন‍্যাল দেন। ওই গাড়িতে বিধায়কের ভাই ছিলেন। তিনি সব জানতে পেরে পোলিং স্টাফদের তার গাড়িতে উঠিয়ে করিমগঞ্জ নিয়ে আসছিলেন। কানিশাইল আসতেই বিপত্তি বাধে। এখানে গাড়ির দীর্ঘ লাইন দেখে বিধায়ক কৃষ্ণেন্দু পালের ভাই কল‍্যাণ পাল  গাড়ি থেকে নেমে একটু সামনে যান। এমন সময় স্থানীয় কিছু লোক  গাড়িতে ইভিএম দেখে চিৎকার শুরু করেন। তাদের ধারণা বিধায়কের গাড়িতে করে পাথারকান্দির ইভিএম নিয়ে আসা হচ্ছে। এক সময় উত্তেজিত জনতা গাড়ির চালককে মারধর সহ গাড়িতে  ভাঙচুর চালায়। তাদের ধারণা পাথারকান্দি থেকে ইভিএম ভর্তি করে বিধায়কের গাড়ি দিয়ে নিয়ে আসা হচ্ছে। এই সন্দেহে এক অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।  ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে পৌঁছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বাধ‍্য হয়ে শূণ‍্যে গুলি চালাতে হয় পুলিশকে। গোটা ঘটনার ম‍্যাজিস্ট্রেট তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন জেলা শাসক।