বৃহস্পতিবার, ৫ই আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / ধনেহরিতে ভোটের দিন গুলিচালনার ঘটনার তদন্ত শুরু

ধনেহরিতে ভোটের দিন গুলিচালনার ঘটনার তদন্ত শুরু

তিন দেহরক্ষী সহ সেদিন তার সঙ্গে এসকর্ট-পাইলটের দায়িত্বে থাকা আরও ছয় পুলিশকর্মীকে।

নিউজফাইল সংবাদ
শিলচর,

গত ১ এপ্রিল দ্বিতীয় পর্যায়ের ভোটের দিন দক্ষিণ অসমের বরাক উপত্যকার কাছাড় জেলার সোনাই বিধানসভা আসনের ধনেহরিতে স্থানীয় বিধায়ক তথা বিজেপি প্রার্থী আমিনুল ইসলামের দেহরক্ষীর গুলিতে চারজন আহত হওয়ার ঘটনার পুলিশি তদন্ত শুরু হয়েছে।

পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনার সাথে জড়িত পুলিশকর্মীদের বার বার সোনাই থানায় বসিয়ে জেরা করছেন। পাওয়া তথ্য মতে তদন্তের স্বার্থে নজন পুলিশ কর্মীকে ক্লোজ করা হয়েছে ।
বিধায়কের দুই দেহরক্ষী আবিদ আহমেদ, পারভেজ আহমেদ ও বেশ কিছু সময় ধরে জেরা করা। বুথ কেন্দ্রে গুলি চালনার ঘটনায় চারজন লোক জখম হওয়া ও পরিবর্তীতে পিস্তল উদ্ধারের ঘটনার তদন্ত ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ে শুরু হয়েছে।

সোনাই থানায় এসে সাক্ষ্য গ্রহন করেছেন পুলিশসুপার বিএল মিনা।
এ দিকে, এর সূত্র ধরে “ক্লোজ” করা হয়েছে বিজেপি প্রার্থী আমিনুল হক লস্করের তিন দেহরক্ষী সহ সেদিন তার সঙ্গে এসকর্ট-পাইলটের দায়িত্বে থাকা আরও ছয় পুলিশকর্মীকে। ক্লোজ হওয়া নয় পুলিশকর্মী হলেন তিন দেহরক্ষী সাজিবুর রহমান লস্কর, আবিদুর আহমদ বড়ভুইয়া ও পারভেজ আহমদ লস্কর এবং এসকর্ট পাইলট ভূপেন সিনহা, হোসেন আহমদ বড়ভুইয়া, আব্দুল লতিফ বড়ভুইয়া, আক্রম হোসেন লস্কর, আফতাব হোসেন ও রুলকনলিওন আমু। নিরপেক্ষ তদন্ত চালানোর জন্যেই এদের ক্লোজ করা হয়েছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার ভোটের দিন বিকেলে ধানেহরি ভোটকেন্দ্রে বিবাদ আরম্ভ হওয়ার পর বিজেপি প্রার্থী আমিনুল ইসলাম সেখানে পৌঁছনোর পর উত্তেজনা চরমে উঠে। আমিনুলকে রুমের ভেতরই আটকে রাখা হয়। এরপর তাঁর দেহরক্ষীরা গুলি ছুড়লে চারজন আহত হন।