বৃহস্পতিবার, ৫ই আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / কংগ্রেস প্রার্থী শচীন  সহ সাতজনকে নোটিশ, প্রচারের গাড়ি জব্দ

কংগ্রেস প্রার্থী শচীন  সহ সাতজনকে নোটিশ, প্রচারের গাড়ি জব্দ

সাত জন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী যথাক্রমে পাথারকান্দির ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের শচীন সাহু, রিপাবলিকান পার্টি অব ইন্ডিয়া(এ)র প্রার্থী জয়ন্ত সিনহা, রাষ্ট্রীয় উলামা কাউন্সিলের প্রার্থী বাহার উদ্দিন, এ জে পি প্রার্থী হুমায়ূন কবির, সঞ্জয় কুমার মালাকার(নির্দল), যশবন্ত কুমার

অরুপ রায়, করিমগঞ্জ, মার্চ ৩০,
দক্ষিণ অসমের পাথারকান্দি ও রাতাবাড়ি বিধানসভা কেন্দ্রের  সাত জন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীকে হিসেব জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। করিমগঞ্জের এক্সপেন্ডিচার সেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিক জেলার ওই সাত জন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীকে নোটিশ ধরিয়ে দিয়েছেন। আজ হিসেব পরীক্ষার দিনে সংশ্লিষ্ট তথ্য তুলে ধরার পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট খাতা পত্র নিয়ে উপস্থিত থাকতে নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে পাথারকান্দির ছয় জন ও রাতাবাড়ির একজন প্রার্থী রয়েছেন।

সাত জন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী যথাক্রমে পাথারকান্দির ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের শচীন সাহু, রিপাবলিকান পার্টি অব ইন্ডিয়া(এ)র প্রার্থী জয়ন্ত সিনহা, রাষ্ট্রীয় উলামা কাউন্সিলের প্রার্থী বাহার উদ্দিন, এ জে পি প্রার্থী হুমায়ূন কবির, সঞ্জয় কুমার মালাকার(নির্দল), যশবন্ত কুমার দাস(নির্দল) ও রাতাবাড়ির সুজিত রায় (নির্দল)।

এদিকে করিমগঞ্জ জেলায় এমসিসি লঙ্ঘনের জন্য দুটি গাড়ি জব্দ করা হয়েছে । এই গাড়িগুলি নির্দল প্রার্থী সাহাবুল ইসলাম চৌধুরীর নির্বাচনী প্রচারে ব্যবহৃত হয়েছিল । এই গাড়ি দুটি অন্য দুই নির্দল প্রার্থী মহাম্মদ আব্দুল বাতিন ও নাজিম উদ্দিন খানের নামে বরাদ্ধ ছিল । কিন্তু ব্যবহৃত হচ্ছিল সাহাবুল ইসলাম চৌধুরীর নির্বাচনী প্রচারে । এই বিষয়টি কর্তব্যরত এসএসটি ও এফএসটি দলের ভিডিও গ্রাফিতে ধরা পড়ে । ফলে এমসিসি সেলের ইমচার্জ জেমস এইন্ডের নির্দেশে এমসিসি লঙ্ঘনের জন্য গাড়িগুলি জব্দ করা হয়েছে ।

করিমগঞ্জের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আনবামুথান এমপি আসন্ন নির্বাচন উপলক্ষে ১৪৪ ধারামতে জেলায় বেশ কিছু নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন । এই নির্দেশে বলা হয়েছে যে ৩০ মার্চ সন্ধ্যা ৬ টা থেকে ২ এপ্রিল পর্যন্ত পাঁচটি বিধানসভা কেন্দ্রে পাঁচ জনের বেশি মানুষের জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে । তবে ভোটের দিন ভোটকেন্দ্রের ২০০ মিটারের মধ্যে এই নির্দেশ বহাল হবে না। এই আদেশে ভোটের প্রচারসীমা শেষ হবার পর জেলায় কোনো সভা সমিতি করা যাবে না। ভোটের দিন  প্রচারের জন্য ভোটকেন্দ্রে অথবা অন্য কোনো স্থানে  মাইক ব্যাবহার করা যাবে না বলে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ।