মঙ্গলবার, ২৭শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / বেসরকারিকরণ হচ্ছে না সব ব্যাংক, আশ্বাস অর্থমন্ত্রীর

বেসরকারিকরণ হচ্ছে না সব ব্যাংক, আশ্বাস অর্থমন্ত্রীর

সরকারি ব্যাংক গুলোর বেসরকারিকরণ ও সংস্কারের বিরোধিতা করতে গিয়ে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক কর্মচারীদের যৌথ মঞ্চ 'ইউনাইটেড ফোরাম অব ব্যাংক ইউনিয়ন' সারা দেশের প্রত্যেকটি ব্যাংক বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

অনুরণ ভট্টাচার্য

সারা দেশ জুড়ে গত ১৪ ও ১৫ মার্চ সরকারি ব্যাংকগুলোর বেসরকারিকরণের প্রতিবাদে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছিল ‘ইউনাইটেড ফোরাম অফ ব্যাংক ইউনিয়ন’ (ইউএফবি )। এর উত্তরে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন সাংবাদিকদের জানান, “সব ব্যাংক বেসরকারিকরণ হবে না। যেসব ক্ষেত্রে বেসরকারিকরণ হবে, সেখানে ব্যাংক কর্মীদের স্বার্থরক্ষার বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।”

সরকারি ব্যাংক গুলোর বেসরকারিকরণ ও সংস্কারের বিরোধিতা করতে গিয়ে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক কর্মচারীদের যৌথ মঞ্চ ‘ইউনাইটেড ফোরাম অব ব্যাংক ইউনিয়ন’ সারা দেশের প্রত্যেকটি ব্যাংক বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। দেশের প্রায় দশ লক্ষেরও বেশি ব্যাংককর্মীরা ওই ধর্মঘটে অংশ নেন। ব্যাংকের সব ধরনের পরিষেবা বন্ধ থাকে ওই দু’দিন। ব্যাংক কর্মীদের এই ৯ টি যৌথসংগঠনের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে জানিয়ে দেওয়া হয় যে, কেন্দ্র বেসরকারিকরণের নীতি থেকে সরে না এলে আগামী দিনে বৃহত্তর আন্দোলনে বসবেন তারা । তাছাড়া বেসরকারিকরণ বন্ধের বিষয়ে কেন্দ্রের কাছ থেকে লিখিত আশ্বাসও দাবি করেছে ‘ইউএফবিইউ’।


অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, কেন্দ্র এমন কোনো পদক্ষেপ নেবে না যাতে ব্যাংক কর্মীদের স্বার্থ ক্ষুণ্ন হয়। বেতন, পেনশন এর মত বিষয়গুলি সুরক্ষিতই থাকবে। উনার কথা অনুযায়ী,”সুনির্দিষ্ট নীতির ভিত্তিতে সব দিক পর্যালোচনা করেই বেসরকারিকরণ সংক্রান্ত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।
এই পরিস্থিতিতে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রক মঙ্গলবার বিকেলে জানান, কেন্দ্রের মূল লক্ষ ব্যাংকগুলোর ইকুইটি বাড়ানো, তাদের আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী করে তোলা এবং পরিষেবার মান বাড়ানো। এ মাসেই নরেন্দ্র মোদি সরকার বেসরকারি ব্যাংক গুলিকে সরকারি ব্যবসায় অংশগ্রহণের প্রয়োজনীয় অনুমতি দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে। এই পরিস্থিতিতে সংসদে অর্থমন্ত্রী জানান, রিজার্ভ ব্যাংকের গাইডলাইন মেনেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।