বৃহস্পতিবার, ৫ই আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / মোদির নির্বাচনী জনসভার আগে কাগজ কল কর্মীদের বেতনের দাবিতে ধর্না

মোদির নির্বাচনী জনসভার আগে কাগজ কল কর্মীদের বেতনের দাবিতে ধর্না

অসমে দুটো কাগজ কল রয়েছে। একটি হাইলাকান্দি জেলার পাঁচগ্রামে এবং অন্যটি হচ্ছে মরিগাওঁ জেলার জাগীরোডে। পাঁচগ্রামের কাছাড় পেপার মিল ২০১৫ সনের অক্টোবর মাসে এবং জাগীরোডের নগাওঁ পেপার মিল ২০১৭ সনের মার্চ মাস থেকে বন্ধ হয়ে

শতানন্দ ভট্টাচার্য
হাইলাকান্দি (অসম), মার্চ ১৮,


প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নির্বাচনী জনসভার প্রায় ২৫ কিলোমিটার দুরে দেড়ঘন্টা ধরে প্রতিবাদ জানালেন বন্ধ থাকা হিন্দুস্থান পেপার কর্পোরেশনের কাছাড় পেপার মিলের পঞ্চাশেরও অধিক কর্মী। আজ বিকেল চারটায় দক্ষিণ অসমের ভারত বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী করিমগঞ্জ জেলার ভাটগ্রামে প্রধানমন্ত্রী মোদি এক বিশাল নির্বাচনী জনসভায় ভাষণ দেন। কিন্তু তার আগেই সকাল এগারোটা থেকে প্রায় দুঘন্টা ধর্না প্রদর্শন করে, স্লোগান দিয়ে তাদের

অসমে দুটো কাগজ কল রয়েছে। একটি হাইলাকান্দি জেলার পাঁচগ্রামে এবং অন্যটি হচ্ছে মরিগাওঁ জেলার জাগীরোডে। পাঁচগ্রামের কাছাড় পেপার মিল ২০১৫ সনের অক্টোবর মাসে এবং জাগীরোডের নগাওঁ পেপার মিল ২০১৭ সনের মার্চ মাস থেকে বন্ধ হয়ে আছে। বেতন পাচ্ছেন না প্রায় দেড় হাজারেরও বেশি কর্মচারী, ফলে আর্থিক সমস্যায় পড়েছেন বিভিন্ন স্তরের শ্রমিক, কর্মচারীরা। তারা বিমার প্রিমিয়াম, শিশুদের স্কুল ফিস ও চিকিৎসার ব্যয় বহন করতে পারছেন না। এযাবৎ বিনা চিকিৎসায় ৮৩ জন কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে তিনজন আত্মহত্যাও করেছেন।

২০১৬ সনের অসম বিধানসভা নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রী মোদি পেপার মিল থেকে একটু দূরেই কালিনগরে এক জনসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে আশ্বাস দিয়েছিলেন যে যদি ভারতীয় জনতা পার্টির সরকার অসমে ক্ষমতায় আসে তাহলে পেপার মিলকে পুনরুজ্জীবিত করা হবে।

কাছাড় পেপার প্রজেক্ট ওয়ার্কার্স এন্ড এমপ্লয়িজ (স্বতন্ত্র) ইউনিয়নের এর সাধারন সম্পাদক আজিজুর রহমান মজুমদার ক্ষোভের সাথে বলেন যে মিলের কর্মীরা নিরাশ হয়ে গেছেন। প্রধানমন্ত্রী মোদি পাঁচ বছর আগে এসে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে রাজ্যে ক্ষমতায় এলে মিল দুটোকেই চাঙ্গা করবেন কিন্তু সরকার এলো এবং পাঁচ বছর কেটেও গেল, আবার নির্বাচনের আগে এসে প্রতিশ্রুতি দেবেন – এটা মেনে নেওয়া যায়না। মজুমদার বলেন মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী মোদি পাঁচবছর আগে দেওয়া প্রতিশ্রুতি পূরণ করুন । তিনি বলেন, পড়াশুনার খরচ চালাতে মিলের কর্মীর ছেলে মেয়েরা ভিক্ষা পর্যন্ত করতে বাধ্য হযেছে। এরথেকে লজ্জার আর কি হতে পারে।