বুধবার, ৪ঠা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / বরাক উপত্যকায় সিন্ডিকেট রাজ রয়েছে, সদ্য বিজেপি ত্যাগী শিলচরের বিধায়ক দিলীপ পালের অভিযোগে প্রমানিত – বরাক ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট

বরাক উপত্যকায় সিন্ডিকেট রাজ রয়েছে, সদ্য বিজেপি ত্যাগী শিলচরের বিধায়ক দিলীপ পালের অভিযোগে প্রমানিত – বরাক ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট

এই সিন্ডিকেট রাজের ব্যাপারে সরব হন ও বিষয়টি মূখ্যমন্ত্রীর নজরে আনেন। কিন্তু মূখ্যমন্ত্রী এখনো এই ব্যাপারে ধৃতরাষ্ট্রের ভুমিকা পালন করে চলেছেন।

নিউজফাইল, শিলচর, মার্চ ১১,

সদ্য বিজেপি ত্যাগী তথা শিলচরের বিধায়ক দিলীপ পাল গতকাল এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছেন যে সিন্ডিকেট রাজ কে সমর্থন করেননি বলে তিনি বিজেপি টিকিট থেকে বঞ্চিত হয়েছেন । তার এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করলেন বরাক ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের মূখ্য আহ্বায়ক প্রদীপ দত্তরায়।

এক প্রেস বার্তায় প্রদীপ বাবু বলেন যে তিনিই সর্বপ্রথম বরাকের এই সিন্ডিকেট রাজের ব্যাপারে সরব হন ও বিষয়টি মূখ্যমন্ত্রীর নজরে আনেন। কিন্তু মূখ্যমন্ত্রী এখনো এই ব্যাপারে ধৃতরাষ্ট্রের ভুমিকা পালন করে চলেছেন।

বিডিএফ মূখ্য আহ্বায়ক বলেন রাজ্যের এক প্রভাবশালী মন্ত্রী অনেক দিন ধরেই সিন্ডিকেট তৈরি করে বরাককে দুর্নীতির আখড়া বানিয়েছেন এবং এই ব্যাপারে বরাক থেকে তাকে সহযোগিতা করছেন শিলচরের বর্তমান সাংসদ সহ বিজেপি সভাপতি কৌশিক রাই, রাজ্য বিধানসভার উপাধ্যক্ষ আমিনুল হক লস্কর, বিজেপির কাটিগড়ার প্রার্থী গৌতম রায় ও শিলচরের প্রার্থী দীপায়ন চক্রবর্তী । এসব কিন্তু আগে থেকে বলে আসছে বিডিএফ। এবার দিলীপ বাবুর কথায় তারই পুনরাবৃত্তি শোনা গেল। এইসবের ফলে একদিকে সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে অন্যদিকে এসব অবৈধ টাকায় বরাক তথা আসামের বিজেপি নেতাদের উদরপূর্তি হচ্ছে। তিনি বলেন কাঠ, কয়লা ,বালি ,পাথর, গরু, পোস্ত ইত্যাদি মিলিয়ে কোটি কোটি টাকার অবৈধ লেনদেন চলছে যার ফলে রাতারাতি বড়লোক হয়ে উঠেছেন বিজেপির এইসব স্থানীয় নেতারা।তার চেয়েও আশঙ্কাজনক ব্যাপার হচ্ছে বর্তমানে দক্ষিণ অসমের বরাক উপত্যকার উপর দিয়ে অবৈধ ড্রাগস এবং অস্ত্রও পাচার হচ্ছে এইসব সিন্ডিকেটের মাধ্যমে,যা পালও উল্লেখ করেছেন। এরকম হলে অচিরেই এই উপত্যাকায় সমাজবিরোধী কার্যকলাপ বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

বিডিএফ মূখ্য আহ্বায়ক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন এই হচ্ছে বিজেপির ‘না খাউঙ্গা না খানে দুঙ্গা ‘ নীতির নমুনা। তার বক্তব্য বিজেপির দিশপুরের নেতারা বরাককে শুধুমাত্র তাদের তথা দলের অর্থোপার্জন এবং ব্যাক্তিগত স্বার্থসিদ্ধির মাধ্যম বলে মনে করেন ,এই অঞ্চলের প্রকৃত উন্নয়নের প্রতি তাদের কোন আগ্রহ নেই। তিনি আরো বলেন যে বিজেপির এবারের প্রার্থীরা নির্বাচিত হলে তাঁরাও এই ব্যাপারকেই প্রাধান্য দেবেন এবং সত্যিকার অর্থে বঞ্চিত হবে এই উপত্যকা।

তিনি তাই বরাকের স্বার্থে সমস্ত সচেতন জনগনকে বিজেপিকে আসন্ন নির্বাচনে ভোট না দেওয়া ও ক্ষমতা থেকে ছুঁড়ে ফেলার আহ্বান জানিয়েছেন।