শনিবার, ২৪শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / ভারতে বন্দি ছয় বাংলাদেশী জেলবন্দীকে হস্তান্তর

ভারতে বন্দি ছয় বাংলাদেশী জেলবন্দীকে হস্তান্তর

নিজ দেশে প্রত্যাবর্তন করার জন্যে বুধবার সকালে এদের নিয়ে আসা হয় করিমগঞ্জে ।

অরুপ রায়
করিমগঞ্জ, মার্চ ৪,

পিতা- মাতা পেয়েছেন যেমন পুত্রকে, তেমনি স্ত্রী পেয়েছেন স্বামীকে। দীর্ঘদিন নিরুদ্দেশ থেকে নিজ দেশের মাটিতে আপনজনকে পেয়ে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়েন অনেকেই । হৃদয়বিদারক এই দৃশ্য ছিল বুধবার দক্ষিণ অসমের করিমগঞ্জ জেলার ভারত – বাংলা সীমান্তবর্তী সুতারকান্দি-শেওড়া জিরো পয়েন্টে । সুতারকান্দি-শেওড়া স্থল বন্দর দিয়ে বাংলাদেশ ফিরলেন আরো ছয় জেলবন্দি । দেশে ফেরত বাংলাদেশীরা হলেন, সাদ্দার আলী, পিতু মণ্ডল, আশরাফুল ইসলাম, বাড্ডু মিয়া, সুজিত চন্দ্র দাস ও হাছান বিশ্বাস। তারা সবাই বাংলাদেশ সিলেট ডিভিশনের বাসিন্দা। অনুপ্রবেশের দায়ে ভারতের বিভিন্ন কারাগারে সাজা ভোগ করছেন এই ছয় বাংলাদেশী। বাংলাদেশের সদ্দার আলীর বাড়ি খুলনা জেলায় । প্রায় ১৭ বছর আগে পরিবার থেকে নিরুদ্দেশ ছিলেন, অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করার অভিযোগে জেলবন্দি ছিলেন তেজপুর কারাগারে । পিতু মন্ডলের বাড়ি গোপালগঞ্জ জেলায়, প্রায় ৩ বছর থেকে একইভাবে তেজপুর কারাগারে সেও আটক ছিল। আশরাফুল ইসলাম ও বুদ্দু মিয়ার বাড়ি কুড়িগ্রাম জেলায়, তারা প্রায় ৩ বছরের অধীক সময় ধরে গোয়ালপাড়া জেলে বন্দি ছিলেন । সুজিত চন্দ্র দাসের বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার মিঠামইন উপজেলায়, তিনি দুই ছেলে ও স্ত্রীকে রেখে অবৈধভাবে প্রবেশ করেছিলেন ভারতে, শেষে ৩ বছর ৮ মাস জেল খেটে আজ স্বামী স্ত্রী এক সাথে হয়েছেন । বাগেরহাট জেলার হাসান বিশ্বাস দালালের খপ্পরে পড়ে ৩ বছরেরও অধিক সময় জেল খেটে তাঁর নিজের দেশে ফিরেছেন ।

নিজ দেশে প্রত্যাবর্তন করার জন্যে বুধবার সকালে এদের নিয়ে আসা হয় করিমগঞ্জে । সীমান্ত পুলিশের সহযোগিতায় কভিড পরীক্ষা শেষে নিয়ে যাওয়া হয় সুতারকান্দিতে । শেষে অতিমারীর নীতিমালা নিয়ে বিএসএফ-সীমান্ত পুলিশ সহযোগে হস্তান্তর প্রক্রিয়ার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় সুতারকান্দি-বিয়ানীবাজার ১৩৬০ নং পিলারের জিরো পয়েন্টে । সেখানেই তুলে দেওয়া হয় বড়গ্রাম ৫২ নং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের কাছে । ভারতের পক্ষে ছয় বাংলাদেশী হস্তান্তর প্রক্রিয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন বর্ডার পুলিশের ডিএসপি সিদ্দেশ্বর সোনয়াল, গুরদীপ সিং এসিস্ট্যান্ট কমাডেন্ট ০৭ বিএন বিএসএফ সুতারকান্দি বিওপি, আসাম পুলিশ সীমান্ত শাখার ইন্সপেক্টর আব্দুল ওয়াখিল, ইন্সপেক্টর বি এন তালুকদার ১৭৮ বিএন বিএসএফ সুতারকান্দি, এএসআই সমরেন্দ্র চক্রবর্তী, ইনচার্জ সুতারকান্দি আইসিপি । বাংলাদেশের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন এস এই আবুল কালাম ইনচার্জ শেওলা আইসিপি, এসআই শাহ আলম, ওসি বিয়ানীবাজার পুলিশ স্টেশন, সুবেদার লোকমান, কোম্পানি কমান্ডার ৫২ নং বিজিবি বড়গ্রাম ।