শনিবার, ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / তবে কি এবার সত্যিই মিটছে ‘ভারত-চীন’ বিবাদ

তবে কি এবার সত্যিই মিটছে ‘ভারত-চীন’ বিবাদ

অনুরণ ভট্টাচার্য, ভারত-চীন বিবাদ এবার হয়তো অবসানের পথে । এমনটাই ইঙ্গিত মেলে বৃহস্পতিবার প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এর বক্তব্যে। প্যাং গং হ্রদের দুপাশে অর্থাৎ উত্তর-দক্ষিণ বরাবর সীমান্ত থেকে যত দ্রুত সম্ভব সেনাবাহিনী সরাতে দু'দেশই সহমত পোষণ করেছে

অনুরণ ভট্টাচার্য,

ভারত-চীন বিবাদ এবার হয়তো অবসানের পথে । এমনটাই ইঙ্গিত মেলে বৃহস্পতিবার প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এর বক্তব্যে। প্যাং গং হ্রদের দুপাশে অর্থাৎ উত্তর-দক্ষিণ বরাবর সীমান্ত থেকে যত দ্রুত সম্ভব সেনাবাহিনী সরাতে দু’দেশই সহমত পোষণ করেছে বলে জানান তিনি। লাদাখ ইস্যু নিয়ে জানতে চাইলে রাজনাথ বলেন, ‘প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় শান্তি বজায় রাখতে আমরা অঙ্গীকারবদ্ধ। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে ভারত বরাবরই জোর দিয়েছে।’ চীনের সঙ্গে সীমান্ত বিরোধ প্রসঙ্গে তিনি আরো জানান ,’গত বছর থেকেই আমরা চীনের সঙ্গে সামরিক ও কূটনৈতিক স্তরে আলাপ-আলোচনা চালিয়েছি। চীনকে আমরা জানিয়েছি, তিনটি নীতির ভিত্তিতে আমরা সমাধান চাই। প্রথমত, নিয়ন্ত্রণরেখা নিয়ে উভয় পক্ষকেই সহমত হতে হবে। দ্বিতীয়ত, স্থিতাবস্থা বিঘ্নিত করার চেষ্টা যেন না হয় । তৃতীয়ত, সব ধরনের সমঝোতায় সহমত হতে হবে দু’পক্ষকেই।’

উল্লেখ্য, গত বছর মে মাস থেকেই তেতে রয়েছে দুই দেশের সীমান্ত।এই বিবাদের নিষ্পত্তি ঘটাতে আগেও বেশ কয়েকবার বৈঠকে বসেছে ভারত-চীন, কিন্তু সমস্যার কোনো স্থায়ী সমাধান হয়নি এখনো। কূটনৈতিক স্তরে আলাপ-আলোচনা হলেও গত বছর ১৫ জুন গালওয়ানে হওয়া সংঘর্ষে প্রাণ হারাতে হয়েছিল ২০ জন ভারতীয় সেনাকে।এই সংঘর্ষে চীনের কিছু ক্ষতি হয়েছিল বলে কেন্দ্র সরকার দাবি করলেও, সে ব্যাপারে কোনো তথ্য প্রকাশ করেনি চীনা সরকার। আগস্টের শেষে আবারো উত্তপ্ত হয়ে উঠে পরিস্থিতি। প্রায় ৪৫ বছর পর সীমান্তে গুলি চালানোর খবর আসে। অন্যদিকে পূর্ব লাদাখ সীমান্ত বিবাদের সূত্র ধরেই সিকিম সীমান্তের কাছে নাকু-লায় সংঘর্ষে মেতে উঠে দু’দেশের জওয়ানরা। প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, লাল ফৌজের ভারতে অনুপ্রবেশের চেষ্টা রুখতেই সংঘর্ষে মাততে হয় ভারতীয় সেনাদের ।এ ঘটনায় চীনেরও বেশকিছু ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেলেও স্বাভাবিকভাবেই চীনা সরকার এর পক্ষ থেকে তা স্বীকার করা হয়নি। এদিকে এ সংঘর্ষে ভারতীয় সেনাদের বেশ কয়েকজন জোয়ান জখম হন। কিছুদিন পূর্বে ভারতীয় সেনার পক্ষ থেকে আবার খবর পাওয়া যায়ে যে গত ২০ জানুয়ারি দু’দেশের সীমান্তে সেনাদের মধ্যে আরো একবার সংঘর্ষের সৃষ্টি হলেও প্রটোকল মেনে স্থানীয় কমান্ডাররা ঘটনাটির সমাধান করতে সক্ষম হন।


এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও সীমান্ত প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং বারংবার কড়া ভাষায় চীনের উদ্দেশে বার্তা দিয়েছেন। কয়েকদিন আগেই সেনাপ্রধান এম এম নারভানে চীনের উদ্দেশ্যে স্পষ্ট ভাষায় জানিয়েছেন যে, আলোচনার মাধ্যমে পূর্ব লাদাখের অচলাবস্থা কাটাতে ভারত বদ্ধপরিকর হলেও কেউ যেন ধৈর্যের পরীক্ষা নেওয়ার ভুল চেষ্টা না করেন।