রবিবার, ২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Top Stories  / অসম-মিজোরাম সীমান্তে পুনরায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে

অসম-মিজোরাম সীমান্তে পুনরায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে

শঙ্করী চৌধুরী, হাইলাকান্দি জেলার অসম-মিজোরাম সীমান্তে পুনরায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।রামনাথপুর থানার অন্তর্গত কচুরথলএলাকায় মিজো দুষ্কৃতীরা রাতের অন্ধকারে বেশ কয়েকটি ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে ও অসমের নাগরিকদের বেধড়ক মারধর ও লুটপাট চালায়। মিজো দুষ্কৃতিদের অতর্কিত হামলায় কম

শঙ্করী চৌধুরী,

হাইলাকান্দি জেলার অসম-মিজোরাম সীমান্তে পুনরায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।রামনাথপুর থানার অন্তর্গত কচুরথল
এলাকায় মিজো দুষ্কৃতীরা রাতের অন্ধকারে বেশ কয়েকটি ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে ও অসমের নাগরিকদের বেধড়ক মারধর ও লুটপাট চালায়। মিজো দুষ্কৃতিদের অতর্কিত হামলায় কম করেও দশজন লোক আহত হয়েছেন। গুরুতর আহত আকিব আলী, হাসনা বেগম এবং এনাম উদ্দিনকে সংকটজনক অবস্থায় শিলচর মেডিকেল কলেজ প্রেরণ করা হয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, দুষ্কৃতীরা I

পুলিশের সহযোগিতায় এই ধ্বংসলীলা চালিয়েছে। অসমের জমিতে বসবাসকারীদের উচ্ছেদ করতেই শূন্যে গুলি চালনা করা হয় বলে অভিযোগ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে হাইলাকান্দি থেকে বিশাল পুলিশ- সিআরপিএফ বাহিনী কচুরথল এলাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনার খবর পেয়ে জেলা উপায়ুক্ত মেঘ নিধি দাহাল ও আরক্ষী অধীক্ষক পিকে নাথ সহ জেলা প্রশাসনের শীর্ষ আধিকারিকরা কচুরথলে ছুটে যান। প্রায় আধ ঘণ্টা চলা মিজো দুষ্কৃতীদের এই তাণ্ডবের ফলে কচুরথল গ্রাম বর্তমান জন মানব শূন্য হয়ে পড়েছে।

হাইলাকান্দি জেলা আরক্ষী অধীক্ষক পবীন্দ্র কুমার নাথ ঘর জ্বালিয়ে দেওয়ার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বর্তমান কচুরথলের বিতর্কিত এলাকা থেকে মিজো দুষ্কৃতীদের তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানান।

মিজো দুষ্কৃতীদের অতর্কিত হামলার ধিক্কার জানিয়ে হাইলাকান্দি জেলার ৬নং জাতীয় সড়ক অবরোধ করে রামনাথপুর এলাকায় স্থানীয়রা বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন। দক্ষিণ হাইলাকান্দি হয়ে মিজোরামে কোনো পণ্য বা যাত্রীবাহী বাহন প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না বলে অবরোধকারীরা জানিয়েছেন।