শনিবার, ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

NewsFile Institute
Home / Big Picture Stories  / বরফে ঢাকা কাশ্মীর এখন শান্তির পথে এগুচ্ছে

বরফে ঢাকা কাশ্মীর এখন শান্তির পথে এগুচ্ছে

মিঠুলাল চৌধুরী গোটা কাশ্মীর এখন বরফে ঢেকে গেছে। তাপমাত্রা ও সন্ত্রাসবাদ দুটোই কমেছে। ২০১৯ এ জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণা এবং সংবিধানের ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর এখন পর্যন্ত উপত্যকায় অনেক পরিবর্তন হয়েছে। সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে

মিঠুলাল চৌধুরী

গোটা কাশ্মীর এখন বরফে ঢেকে গেছে। তাপমাত্রা ও সন্ত্রাসবাদ দুটোই কমেছে। ২০১৯ এ জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণা এবং সংবিধানের ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর এখন পর্যন্ত উপত্যকায় অনেক পরিবর্তন হয়েছে।


সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে নিরাপত্তা বাহিনী কড়া ব্যবস্থা নেওযায় জঙ্গী অনুপ্রবেশও অনেক কমেছে। স্থানীয় তরুণ দের মূলস্রোতে ফেরাতে চেষ্টা চালাচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী ও সরকার , যাতে সন্ত্রাসবাদকে উপত্যকা থেকে একেবারে সমূলে বিনাশ করা যায়। এদিকে সন্ত্রাসবাদ কমায় কাশ্মীরে পর্যটকের সংখ্যা আবার বাড়ছে। বছর ধরে এটা লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে উপত্যকার জনগণের মনোভাবেরও পরিবর্তন অনেকটাই হয়েছে। ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর স্থানীয় রাজনৈতিক দলগুলো অশান্তি বাধানোর চেষ্টা করা সত্ত্বেও তেমন কোন ঝামেলা বাধেনি।


কেন্দ্রীয় সরকার ধারা প্রত্যাহারের পর সেখানকার রাস্তাঘাট, পানিয়জল, বিদ্যুৎ, স্বাস্থ্য, শিক্ষা এবং কৃষিসহ অন্যান্য কাজে অনেক গতি এনেছে, এবং গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে সচেষ্ট হয়েছে সরকার। সম্প্রতি জেলা উন্নয়ন পরিষদের নির্বাচনে ও জম্মু এবং কাশ্মীরের জনগণকে ব্যাপক সংখ্যায় অংশগ্রহন করতে দেখা গিয়েছে। বর্তমানে জঙ্গী দলে নাম লেখানো যেমন কমেছে তেমনি আত্মসমর্পণের সংখ্যাও বাড়ছে। জঙ্গীদের বিরুদ্ধে স্থানীয় মানুষরা প্রশাসনকে সহযোগিতাও করছেন, বলা যেতে পারে উপত্যকার জনগণ এখন উন্নয়নের পথে যাত্রা করেছেন। উননয়নের জন্যে শান্তি প্রয়োজন এবং এই শান্তির পথেই এগিয়ে যাচ্ছে কাশ্মীর।